বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ১২:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ভালোবাসা নিখোঁজ রূপগঞ্জে বিপুল ভোটে বিজয়ী উপজেলা চেয়ারম্যানের সাথে ফুলের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আলমগীর হোসেন মাতোয়ারা রূপগঞ্জে বন্ধুদের সাথে গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে কলেজ ছাত্রের মৃত্যু মধুপুরে বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে এক যুবকের মৃত্যু মধুপুর উপজেলা প্রশাসন ও ইসলামিক ফাউণ্ডেশনের উদ্যোগে ইমামদের সাথে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ঈদগাঁও বাজারের বাঁশঘাটায় অগ্নিকাণ্ডে ৪২টি দোকান পুড়ে ছাই : আহত ২  তাৎক্ষণিক অভিনয়ে জাতীয়পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ হয়েছে মধুপুরের সাবিকুন্নাহার বানী বিলাইছড়ি উপজেলায় ৪ নং বড়থলি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়াম্যান আতোমং মার্মা গুলিবিদ্ধ পাইকগাছা উপজেলা নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দের পর চলছে প্রার্থীদের বিরামহীন প্রচার-প্রচারণা

লামায় স্টেকহোল্ডার ক্যাম্পেইন বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

টি আই, মাহামুদ - বার্তা সম্পাদক
  • Update Time : সোমবার, ৯ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৭১ Time View

ইসমাইলুল করিম,
বান্দরবান প্রতিনিধি

পার্বত্য জেলার বান্দরবানের লামায় মৎস্য অধিদপ্তরাধীন ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে মৎস্য সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্পের’ আওতায় উপজেলা পর্যায়ে স্টেকহোল্ডার ক্যাম্পেইন বিষয়ক কর্মশালা হয়েছে। সোমবার (০৯ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলা পরিষদ হলরুমে এই কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

কর্মশালায় লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.মোস্তফা জাবেদ কায়সার সভাপতিত্ব প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা জামাল।, কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ছিলেন বান্দরবান জেলা মৎস্য কর্মকর্তা অভিজিৎ শীল। অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন, লামা পৌরসভা মেয়র আওয়ামিলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. জহিরুল ইসলাম, লামা থানা পুলিশ ইনচার্জ (ওসি) শামীম শেখ, ভাইস চেয়ারম্যান মো. জাহেদ উদ্দিন স্টেকহোল্ডার প্রজেক্ট সহকারী পরিচালক আবদুল্লাহ আল হাসান সহ প্রমূখ। এছাড়া উপজেলা বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, সাংবাদিক, ইউপি চেয়ারম্যানগণ, প্রশিক্ষণ নিতে আসা ক্রিক মালিক, মৎস্য চাষী, জেলে ও প্রকল্পের সুবিধাভোগীরা।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা অভিজিৎ শীল বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে মৎস্য সম্পদ উন্নয়ন ও মৎস্য চাষের মাধ্যমে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি, পার্বত্য জনগণের পুষ্টি চাহিদা পূরণ, কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও আয় বৃদ্ধি এবং সরকারের দারিদ্র হ্রাসকরণই প্রকল্পের উদ্দেশ্য। তাছাড়া প্রকল্পের চারটি সুনির্দিষ্ট উদ্দেশ্য রয়েছে। তা হল- ক্রিক/জলাশয়/জলাধারের পরিবেশ ও প্রতিবেশ উন্নয়নের মাধ্যমে মাছের উৎপাদন ও উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি, ক্রিক-সংশ্লিষ্ট সুফলভোগীদের মাছ চাষের বিভিন্ন প্রযুক্তির বিষয়ে দক্ষতা উন্নয়ন, পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের অনগ্রসর/প্রান্তিক জনগোষ্ঠির পুষ্টি চাহিদা পূরণ ও সংশিষ্ট সুফলভোগীদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন এবং অবকাঠামো উন্নয়নের মাধ্যমে মৎস্য অধিদপ্তরের সক্ষমতা বৃদ্ধি।

প্রকল্পের প্রধান কার্যক্রম গুলো হচ্ছে- তিন পার্বত্য জেলায় ২৬ টি উপজেলায় ৮১৪টি ক্রিক উন্নয়নের জন্য বাঁধ ও ড্রেন নির্মাণ, প্রাকৃতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ৮০টি ক্রিক মেরামত ও সংরক্ষণ, প্রকল্প মেয়াদের প্রকল্প এলাকায় ৭৫৪০জন সুফলভোগীদের প্রশিক্ষণ প্রদানে দক্ষতা উন্নয়ন, ৩৬০০ দরিদ্র মৎস্যজীবি জেলে পরিবারকে বিকল্প কর্মসংস্থানে সহায়তা প্রদান, ৭টি মাছের অভয়াশ্রম স্থাপন এবং প্রকল্প এলাকায় সম্ভাবনাময় ৪টি মৎস্য চাষ প্রযুক্তি প্যাকেজের মাধ্যমে ৮১৪টি প্রদর্শনী খামার স্থাপন। এছাড়া প্রকল্পের আওতায় রাঙ্গামাটিতে ১টি জেলা মৎস্য অফিস, ৩টি পার্বত্য জেলায় ১৫টি উপজেলা মৎস্য অফিস নির্মাণ করা হবে। প্রকল্পের আওতায় ৩টি হ্যাচারী ও ১টি ট্রেনিং সেন্টার মেরামত ও সংষ্কার করা হবে বলে জানান ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design & Develop BY Coder Boss
themesba-lates1749691102