মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৮:৩২ অপরাহ্ন

কালুরঘাট সেতু দিয়ে জুন / জুলাই মাসে যান চলাচল শুরু হতে পারে

Coder Boss
  • Update Time : সোমবার, ২২ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪৭ Time View

 

 

প্রদীপ্ত  রণন

 

আগামী জুন মাসের শেষ দিকে অথবা জুলাই মাসের প্রথম দিকে কালুরঘাট সেতু দিয়ে যান চলাচল শুরু হতে পারে ।

বর্তমানে সেতুর চলমান সংস্কার কাজ শেষ হতে আরও দুই মাস সময় লাগতে পারে বলে জানিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ।এই বিষয়ে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের সেতু প্রকৌশলী জিসান দত্ত  নিউজ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, সেতুতে যানবাহন চলাচলের জন্য কার্পেটিংয়ের কাজ চলছে। হাঁটার জন্য ওয়াকওয়ের কাজ চলছে, সেখানে ঢালায় হবে। সব মিলিয়ে আগামী জুনের মধ্যে সেতু সংস্কারের কাজ শেষ  করার চেষ্টা রয়েছে। জুনের শেষ দিকে অথবা  জুলাই মাসের প্রথম দিকে  কালুরঘাট সেতুতে  যানচলাচল শুরু করতে পারবো বলে আশা করছি।

 

নগরীর সঙ্গে বোয়ালখালী ও পটিয়া উপজেলার একাংশের যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম এই কালুরঘাট সেতু। চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীর ওপর ১৯৩০ সালে নির্মিত কালুরঘাট রেল সেতুর বয়স প্রায় ৯৫ বছর। এ সেতু দিয়ে ১৯৫৮ সাল থেকেই রেলের পাশাপাশি যানবাহনও চলাচল করে। কিন্তু দোহাজারী থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত নতুন রেলপথ নির্মাণের পর এ সেতুর বিকল্প হিসেবে নতুন সেতু নির্মাণের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। উচ্চতা নিয়ে জটিলতায় নতুন সেতু নির্মাণকাজ বিলম্বিত হওয়ায় রেলওয়ে বিদ্যমান সেতুটি সংস্কারের মাধ্যমে সংকট নিরসনের চেষ্টা করছে।

প্রায় ৪৪ কোটি টাকা ব্যয়ে বুয়েট প্রকৌশলীদের পরামর্শে সংস্কার করা হচ্ছে কালুরঘাট সেতু।রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের প্রকৌশল বিভাগ জানিয়েছে, সেতুটি দিয়ে যানবাহন চলাচলের পথ থাকায় রেল ট্র্যাকের অভ্যন্তরে পানি জমে পাত ক্ষতিগ্রস্ত হতো। এ কারণে বছরের বিভিন্ন সময় রেল ট্র্যাক মেরামতের প্রয়োজনে সেতুটি যানবাহন চলাচলের জন্য বন্ধ রাখা হতো। তবে এবার বিদ্যমান পাটাতনের ওপর বিশেষ প্রযুক্তির কংক্রিটের ঢালাই দিয়ে পানি নিষ্কাশনের পথ রাখা হবে।

এরপর ওই কংক্রিট ঢালাইয়ের ওপর পিচ দিয়ে সড়কপথ নির্মাণ করা হবে। এতে সড়ক ও রেলপথ উভয়ই আগের চেয়ে শক্ত থাকবে। বর্ষা মৌসুম কিংবা কুয়াশাজনিত পানি না জমে কংক্রিট ঢালাইয়ের অভ্যন্তরীণ ড্রেনেজ সিস্টেম দিয়ে নদীতে পড়লে রেল ট্র্যাক, ক্লিপ ও সেতুর ইস্পাতের পাটাতন ক্ষয় হবে না। বিশেষ প্রযুক্তি ও বুয়েটের পরামর্শে নতুন করে নির্মাণ করায় মেয়াদোত্তীর্ণ সেতুটি দীর্ঘ সময় ব্যবহারযোগ্য থাকবে বলে মনে করছেন রেলওয়ের প্রকৌশলীরা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design & Develop BY Coder Boss
themesba-lates1749691102